সোশ্যাল মিডিয়ায় শেখ হাসিনাকে সমর্থনের আহ্বান সাকিবের- তরুণরা কি বলছে?

ফেইসবুক থেকে
Share Button

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেখ হাসিনাকে সমর্থনের আহ্বান সাকিবের- তরুণরা কি বলছে?

শেখ হাসিনা দেশকে জেতানোর লড়াইয়ে আছেন, এ অগ্রযাত্রা আরও এগিয়ে নিতে তরুণদের সক্রিয় সমর্থন প্রত্যাশা করে ভিডিও বার্তা দিয়েছেন ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান।

তার এই ভিডিও তে কেমন প্রতিক্রিয়া জানালেন তরুণেরা! চলুন দেখে নেই তার এই আহবানের বিপরীতে তরুণরা কি ভাবছে?

ইমরান খান এশান লিখেছেন, “সাকিব সাহেব, আপনি এতগুলা কথা না বলে শুধু যদি একটা বাক্য বলতেন- সামনে আসছে শুভদিন, বাংলাদেশকে ভোট দিন। তাহলে আপনাকে সত্যিকারের দেশ প্রেমিক ভাবতাম। কোনো নির্দিষ্ট দলকে না।”

নাজির আহমেদ মন্তব্য করেন, “সময় থাকতে সম্মান হারাবেন না”।

আরাফাত মন্তব্য করেন, “যদি জাতীয় দলের অন্য কেউ বিএনপির পক্ষে বলে সে কি আর দলে সুযোগ পাবে?”

আবিদ আব্দুল্লাহ মন্তব্য করেন, “কিছু দিন আগেই তো ছাত্রলীগ কর্তৃক হাতুড়ির আঘাত সইতে হয়েছে। হেলমেট বাহিনী আর জাইঙ্গা বাহিনী এসবের বিরুদ্ধে তো তরুণদের আহ্বান করেন নাই। ভালোই মি. সাকিব, খুবই ভালো।”

ভিডিও বার্তায় শেখ হাসিনাকে সমর্থন করার আহ্বান জানান ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান

শারমিন সুলতানা রিমা নামে এক তরুণী লিখেন, “দালালী ছাড়লে ভালো হয়, জনগণ সব কিছু বুঝতে পারে, ভোট কাকে দিতে হবে সেটা শুনছি কিন্তু সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ার কথা বের হলো না কারণ কী?”

সানি মন্তব্য করেন, “এদের কোনো দোষ নাই, এদেরকে জোর করে এসব করানো হচ্ছে। কারণ নিজেদের তো মুরোদ নাই তাই একটু অন্যকে দিয়ে কাজ চালানো আর কী!”

হেলাল উদ্দিন জানতে চান, “ফেসবুক মনিটরিং টিম কি করে? এই সব কমেন্ট সেকশন মনিটরিং করা দরকার।”

কামরুল হাসান নামে এক তরুণ মন্তব্য করেন “সবাইকে রাজনীতির মাঠে নিয়ে আসার ট্রেন্ডটা “টোটালি রাবিশ”!”

“১৬ কোটি মানুষের একসারিতে নিয়ে আসার একমাত্র জায়গা ক্রিকেট, এখন তারাও আওয়ামী লীগের সস্তা ভূলেটিংয়ে ব্যস্ত!! জনসমর্থনহীন দেওলিয়া হলে যা হয়” সাইদুল ইসলাম ইমনের মন্তব্য।

আরিফ মাহমুদ মন্তব্য করেন, “তো মি. সাকিব, আপনি উন্নয়নের কথা বলে প্রকান্তরে লীগের জন্য ভোট চাইলেন।ভাল কথা কিন্তু লীগের ব্যাংক ডাকাতি, গুম-খুন, অপহরণ, রাহাজানি, টেন্ডারবাজি, চাদাবাজি, প্রশ্নফাঁস, তরুণদের উপর স্টীমরোলার, মানবাধিকার ভুলুন্ঠিত, হাজার কোটি টাকা পাচার, বিনাভোটে এমপি-সরকার, গণতন্ত্র উধাও ইত্যাদি বিষয়ে কিছু বললেন না যে! নাকি আপনিও ভাগ পেয়েছেন?”

মামুনুর রশীদ পারভেজ বলেন, “মি. সাকিব, চেতনার দালালী তে জনগণের রিএ্যাকশন দেখে লজ্জিত হচ্ছি। কমেন্টগুলো পড়ে নিজের ব্যক্তিত্ব কে সংরক্ষণ করুন।”

উল্লেখ্য, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহনের ঘোষণা দিয়েছিলেন ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা ও সাকিব আল হাসান। পরবর্তীতে অজানা কারণে সাকিব মনোনয়ন সংগ্রহ না করলেও মাশরাফি মনোনয়ন সংগ্রহ করেন এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবেও তিনি মনোনয়ন পান। ধারণা করা হচ্ছে, সাকিব আল হাসানকে মূলত নির্বাচনী প্রচারে ব্যবহারের জন্যই মনোনয়ন দেয়া হয়নি। যার প্রমাণ পাওয়া গেল আজ প্রকাশিত সাকিব আল হাসানের এই ভিডিও বার্তা থেকে।

সূত্রঃ sangbad247.com

Share Button