সংলাপের আড়ালে যা হচ্ছে

মতামত
Share Button

সংলাপের আড়ালে যা হচ্ছে
গৌতম দাস

সংলাপ কত দূর, কোথায় গিয়ে দাঁড়াল? গত ১ নভেম্বর সন্ধ্যায় আকস্মিকভাবে হাজির হওয়া সংলাপ শেষে বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি কোথায় নিয়ে যাবে?

গত মাসে ১৩ অক্টোবর ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’ গঠনের ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। এরপর তাদের দাবি ও করণীয় দফার তালিকা নিয়ে তারা সরকারের কাছে তা পৌঁছে দিয়েছিল। কিন্তু শুরু থেকেই অক্টোবরের তৃতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত আমরা দেখেছিলাম সরকারি দল কোনো ধরনের সংলাপ বা আলোচনাকে একেবারেই নাকচ করে দিচ্ছে। আর টিটকারি বা বাঁকা কথা দিয়ে হাসিনাসহ মন্ত্রীরা কাক্সিক্ষত যেকোনো সংলাপের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে নিয়ে নানান কথা বলে চলছিলেন। ‘কোনো সংলাপ হবে না। …সংলাপের কথা ভুলে যান’… ধরনের কথা শুনতে শুনতে আমাদের মনেও দৃঢ়বিশ্বাস জন্মে গিয়েছিল। কেউ আর আশা করেনি যে, এবার এমন কিছু আর বাংলাদেশ দেখবে। কিন্তু না। তাহলে সরকারের এই মন পরিবর্তনকে অবশ্যই আকস্মিক বলা যায়। এটা কেবল গত শেষ এক সপ্তাহের গতিপ্রকৃতি ও বিকাশ। কিন্তু এমন পরিবর্তন কেন?

সেটি কী দিয়ে কোথা থেকে বোঝাবুঝির শুরু করব, সে কাজ সবচেয়ে সহজে করতে চাইলে এর উপায় হলো জাতীয় পার্টির এরশাদের প্রতিক্রিয়া লক্ষ করা। আমাদেরকে এরশাদের নড়াচড়ার দিকে চোখ ফেলতে হবে। এই সংলাপের দিন ১ নভেম্বর বাংলাদেশের সবচেয়ে বিরক্তি বোধ করা ব্যক্তিটি হলেন এরশাদ। এর চেয়েও বড় কথা তিনি যে, এ দিন খুবই বিরক্ত তা তিনি রেজিস্টার করে রাখতে চান এবং তা একেবারে মিডিয়ায়। কিন্তু এ দিন ঢাকায় মিডিয়া কাভারেজ পাওয়া খুবই কঠিন ছিল। কারণ, এ দিনের ঢাকার মিডিয়া বিশেষ করে টিভি মিডিয়াগুলো দু’টি হাই-প্রফাইল কাভারেজ নিয়ে খুবই ব্যস্ত ছিল।

এর একটি হলো, এ দিন রাষ্ট্রপতির সাথে নির্বাচনের তারিখ নিয়ে নির্বাচন কমিশনারদের নির্ধারিত সাক্ষাতের দিন ছিল। আর ওই সাক্ষাতের পরে নির্বাচনের তারিখ যা ফাইনাল হয়েই আছে অনুমান করা যায়, এর ঘোষণার দিন না হলেও ইঙ্গিতে তা সামনে চলে আসতে পারে। ফলে সেটির কাভারেজ। আর দ্বিতীয়ত সবচেয়ে বড় প্রফাইল হলো, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে সরকারের সংলাপের সংবাদ কাভারেজ। খুব সম্ভবত সংলাপের এই দিনের ঢাকায় মিডিয়া কাভারেজ পাওয়া কঠিন হবে বলে তা পেতে এরশাদকে রংপুর চলে যেতে হয়। যাতে রংপুরের স্থানীয় কাভারেজ দিয়ে তিনি ঢাকায় প্রবেশ করতে পারেন।

কিন্তু মনে রাখতে হবে, এ দিন তিনি ছিলেন যেন ১ নভেম্বরের বাংলাদেশের সবচেয়ে বিরক্তি বোধ করা মানুষ। আর সেই বিরক্তি তিনি মিডিয়ায় আনতে চান, এই তার উদ্দেশ্য। কিন্তু ওই দিকে এরশাদ এমনিতেই এক অদ্ভুত বিপদের মুখে আছেন। থাকেনও প্রায় সময়ই। তুলনা করে বললে, ব্যাপারটা যেন এমন, এক লোক খুবই আকর্ষণীয়, কিন্তু অদ্ভুত এক দাওয়াত পেয়েছেন। সেটি বলা বাহুল্য খুবই লোভনীয় কিন্তু ওই দাওয়াত খাওয়ার ক্ষেত্রে সেখানে একটা শর্ত আছে, সেটি হলো দাওয়াতের হোস্ট বা দাওয়াতদাতা প্রথমজনকে আগাম জানাচ্ছেন, প্রথমজন দাওয়াত পেয়েছেন বটে কিন্তু আসলে দ্বিতীয় একজনও দাওয়াত পেয়েছেন যিনি আসলে মূল দাওয়াতি, ফলে তারই আসার কথা। মূলত এই দ্বিতীয় দাওয়াতিকে খাওয়ানোর জন্যই এত আয়োজন, তার সেখানে খাওয়ার কথা। তাই হোস্ট প্রথমজনকে আগাম জানিয়ে রাখছেন, এখানে শর্ত হলো দ্বিতীয়জন, তিনি যদি আসেন ও খাওয়াদাওয়া করেন তবে সে ক্ষেত্রে প্রথমজনের জন্য ভাত বা খাবার কোনোটার ব্যবস্থা থাকবে না। আর উল্টো হলে, স্বভাবতই মূল দাওয়াতি দ্বিতীয়জন যদি অনুপস্থিত থাকেন তবে প্রথমজনের কপাল খুলে যাবে। তিনি তার দোস্তদের সাথে পেটপুরে খেতে পাবেন। এই গল্পের মূল দাওয়াতি বা দ্বিতীয়জন হলো আসলে বিএনপি। আর প্রথমজন হলেন এরশাদ, তিনি এই অদ্ভুত দাওয়াত পেয়ে অপেক্ষায় আছেন। আপাতত রংপুরে গেছেন।

২০১৪ সালে তিনি এমন দাওয়াত দিলে তা খাবেনই না বলার পরও কোনো এক কারিশমাতে তিনি ও তার দল একাধারে সরকারি ও বিরোধী দল দুটোই হয়ে গেছিলেন। অর্থাৎ সরকারি মন্ত্রিত্ব নিয়েছেন আবার তারা নিজেদের বিরোধী দল মনে করেন। আজ এর প্রায় পাঁচ বছর শেষের দিকে দেখা যাচ্ছে এরশাদ ও তার দলের অভিজ্ঞতা হলো, ভালোই ছিল বলে তারা উপভোগ করেছেন। তাই এবার এরশাদ নিজেই যেচে সেটি এবারো চাইছেন।

সেই এরশাদ এবার সংলাপের দিন সংলাপ প্রসঙ্গে রংপুর থেকে খুবই বিরক্তি প্রকাশ করে কথা বলেছেন। কারো মুখের সামনে থেকে খাবার সরিয়ে আনলে বা উঠিয়ে নিয়ে সরিয়ে রাখতে তার যেমন ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া হয়, এই প্রতিক্রিয়া যেন তেমনই।

এরশাদকে মিডিয়া কাভারেজ সবচেয়ে ভালো দিয়েছে যুগান্তর। আমরা এরশাদের বক্তব্য সেখান থেকে টুকে আনলে সেগুলা হলো : ‘সংলাপের সফলতা নিয়ে এরশাদের সংশয়’… ‘ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা দাবির কোনোটিই মানা সম্ভব নয়’।… ‘সংলাপ ব্যর্থ হবে’… ‘শেখ হাসিনার পক্ষে কোনো দাবিই কোনোভাবে মেনে নেয়া সম্ভব নয়’। ‘বিএনপি আদৌ নির্বাচনে অংশ নেবে সন্দেহ রয়েছে’। আর সবশেষে… ‘বিএনপি নিজেদের অস্তিত্বের সঙ্কটে রয়েছে’- দৈনিক যুগান্তর থেকে জড়ো করা এরশাদের ভাষ্য থেকে পাওয়া। এখানে প্রতিটি বাক্যে এরশাদের অসন্তোষ ফুটে উঠেছে। যেন তিনি বলতে চাইছেন, যেটা হবে না সেটা নিয়ে কেন যে আপা চেষ্টা করছেন!

ব্যাপারটা হলো, অনুমান করা যায় এরশাদ জানতেন বা তাকে জানানো হয়েছিল প্রধানমন্ত্রীর এই সংলাপের মানে কী? সেটি হলো ১ নভেম্বর এটি ছিল আসলে বিরোধী দলের আসন নিতে বিএনপি রাজি হবে কি না- এই লক্ষ্যে তাদেরকে ডেকে দেয়া অফার। কাজেই সংলাপ মানে ছিল বিরোধী দল থেকে বিএনপিকে দেয়া লীগের অফার। এই অফার মানে, দেয়া দাওয়াত যদি বিএনপি না নেয়, তবেই এটা জাতীয় পার্টির এরশাদের। সে কারণে এরশাদের দাওয়াতটাই এমন যে, বিএনপি যদি বিরোধী দলের আসন নেয়ার অফার নিয়ে নেয়, তবে এরশাদের দলের ভাগে আর ভাত নেই হয়ে যাওয়া। সে কারণে এরশাদের পুরো বক্তব্যইÑ বেশি বেশি করে গরু মরে না কেন এ জন্য শকুনের করা বদদোয়ার মতো।

এ কারণে সংলাপ মানে হলো বিএনপিকে বিরোধী দলের আসন নিতে হাসিনার অফার, এর মানে এরশাদের ভাগে সে ক্ষেত্রে কিছুই জুটবে না। তাই স্বভাবতই সংলাপের দিন সবচেয়ে দুঃখ আর হা-হুতাশের দিন হলো এরশাদ ও তার দল জাতীয় পার্টির। আর এ কারণে তিনি এ দিন যা প্রচার চালিয়ে গেছেন এর সারকথা হলো- ‘সংলাপ ব্যর্থ হবে’। সবার চেয়ে স্পষ্ট করে এরশাদ বলেছেন, সংলাপের সফলতা নিয়ে তার সংশয় আছে।
আর সবার শেষে একটা বোমা মেরে বলেছেন, ‘… আগামী নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে কি না তা নিয়ে সংশয় আছে।’

অতএব এখান থেকেই আমরা সিদ্ধান্তে যেতে পারি, এরশাদের এই প্রবল বদদোয়া- এটা বলছে যে হাসিনা হঠাৎ মন পরিবর্তন করে সংলাপ করতে চাইলেন, এ জন্য যে বিএনপিকে তিনি বিরোধী দল হতে অফার করেছেন। বলা বাহুল্য বিএনপি যদি এই অফার মেনে নিতে আপসে রাজি হয়ে যায়, তবে এর সোজা অর্থ হলো বিএনপি লীগকেও সরকারি দলে আবার ক্ষমতায় থেকে যেতে দিতে মেনে নিচ্ছে।

অতএব গত ১ নভেম্বর থেকে সবচেয়ে টেনশনে ও বদদোয়া দেয়ার মধ্যে আছে জাতীয় পার্টি। কত দিন যে থাকতে হয়। গতবার এক অদ্ভুত সরকারি মন্ত্রীর বিরোধী দল হতে পেরেছিল এরশাদ হাসপাতালে শুয়ে শুয়ে। এবার কি আর সেই কপাল হবে?

গত সংলাপের বেশ কিছু সময় টিভি মিডিয়া কাভারেজে উভয় পক্ষকে দেখা গেছিল। স্বল্প সময়ের হলেও আমরা তাতে তাদের মুখ ও চোখের ভাষা বা বডি ল্যাঙ্গুয়েজ ইত্যাদি দেখতে পেয়েছিলাম। লক্ষণীয় হলো, অন্তত ক্যামেরার সামনে সরকারি দলের বডি ল্যাঙ্গুয়েজে অতিথিদের প্রতি যেন এক বিশেষ ধরনের সম্মান ও সম্ভ্রমবোধ প্রকাশ পাচ্ছিল। কাউকে সম্মান করে পা টিপে বা সতর্ক হয়ে হাঁটলে যেমন লাগে, তেমন মনে হচ্ছিল। লীগের চোখ দিয়ে দেখে সেটা কল্পনা করা যাক, তারা ভাবতে পারে এটা দুর্বল সময়ে দুর্বল বিএনপিকে দেয়া বেস্ট অফার। তাহলে লীগের দিক থেকে এর অর্থ হবে এটা লীগের জন্য শুধু আগামী পাঁচ বছর ক্ষমতার নিশ্চয়তা নয়, বরং আসন্ন অ-নে-ক বছরের ও অনেক কিছুর নিশ্চয়তা। ফলে এমন বিএনপি বা তার বন্ধুদের জোট ঐক্যফ্রন্টের জন্য লীগের বিশেষ সম্মান ও সম্ভ্রমবোধ প্রকাশ- এটা কোনো ব্যাপারই নয়। চাই কি আরো একটু খাতির যতœও তারা করতে পারে।

তবে আর একটা দিক আছে। গত ১ নভেম্বর গণভবনে টেবিলের দু’পাশে যারা মুখোমুখি বসেছিলেন, তারা এটা ১৯৯১ সালের পর প্রায় ২০ বছরের মতো হলো, এভাবে মুখোমুখি আগে কখনো এমন বসেছেন আমাদের মনে পড়ে না। এই সময়কালের শেষের ১০ বছর বিরোধীরা সরকারি দলের মুখোমুখি হয়েছে কেবল ভিকটিম হিসেবে। ফলে তারা যে আবার কখন টেবিলে মুখোমুখি বসতে পারে বা চোখে তাকিয়ে কথা বলতে পারে, এটা মিডিয়া বা সাধারণ মানুষের চোখে অকল্পনীয় হয়ে গেছিল। তাই অনভ্যস্ততার চোখ ছড়িয়ে ছিল চার দিকে।

এখন কী হবে?

প্রথমত, সরকারি পক্ষ ছিল সংলাপ কেন তা তাদের জানা। ফলে প্রস্তুতও পরিকল্পিত। অন্য দিকে, বিরোধীরা ছিল চোখে লাগার মতো হোমওয়ার্কহীন আর পুরো অন্ধকারে। যদিও কেনো সংলাপ, কী অফার সেসব কিছুই আগাম ধারণা না থাকায়, সেটাও একধরনের অপ্রস্তুতি এবং পরিকল্পনাহীন হয়ে থাকতে হওয়া। তবে তারা এ ধরনের পরিস্থিতিতে সব ইতিবাচকভাবে দেখছিল, অথচ কোথাও কোনো ইঙ্গিত ছাড়াই। এ ছাড়া মানুষ ভালো হয়ে যেতেও পারে ধরনের ভাবনাকে চিন্তার কোন অবস্থানে জায়গা দিয়েছিল; অথচ তাদের উচিত ছিল তাদের দাবির কোন কথাটা কিভাবে, কার পরে কী বলবে- এগুলো নিয়ে কিছু আগাম পরিকল্পনা করে হাজির হওয়া। আর আগাম কিছুই ইতিবাচক দেখার দরকার ছিল না। তবে এখন আর একটু গোছানোর সময় পেয়েছে। তা নিয়ে বলেছে, প্রধানমন্ত্রীর সাথে সংলাপে ‘সমাধান পায়নি’ তারা- জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

তাহলে এখন কী হবে?

লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মন্ত্রী কাদের এ ব্যাপারে আমাদের সাহায্য করেছেন। তার অনুমান ৮ অক্টোবরের পর অনেক কিছু জানা যাবে। তিনি আসলে হয়ে যাওয়া সংলাপকে (মানে প্রদত্ত অফার) প্রবল ইতিবাচকভাবে দেখার ও পেশ করার সুযোগ নিয়েছেন। তিনি বলছেন, আবার ছোট আকারে বসার দরকার হতে পারে।

এখন ঐক্যফ্রন্ট বা বিএনপি যদি সংলাপ (বা কোনো অফার) প্রত্যাখ্যান করলাম ধরনের কথা বলার দিকে যদি যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়, তবে স্বভাবতই মধুচন্দ্রিমার দিন শেষ হবে, কাদেরের ৮ তারিখও। সে ক্ষেত্রে আমরা সংলাপ-পূর্ব দিনগুলোর মতো আবার দমন-নির্যাতনে সঙ্ঘাতের দিনগুলোতে ফিরে যেতে দেখব।

লেখক :
গৌতম দাস
রাজনৈতিক বিশ্লেষক
goutamdas1958@hotmail.com

সুত্রঃ নয়াদিগন্ত

Share Button

Leave a Reply