প্রাইভেট-কোচিং ছাড়াই মেডিকেলে চান্স পেল কৃষক কণ্যা সুপ্রিয়া

সফলতার গল্প
Share Button

প্রাইভেট-কোচিং ছাড়াই মেডিকেলে চান্স পেল কৃষক কণ্যা সুপ্রিয়া

‘বাবা অনিমেষ অধিকারী দরিদ্র কৃষক। মা উন্নতি অধিকারী গৃহিনী। বড় ভাই বরিশাল প্যারামেডিকেলে পড়ে। ছোট ভাই কাস সিক্সে। বাস করে বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার নিভৃত পল্লী রায়গ্রামে। অভাবের সংসারে কোনদিন প্রাইভেট ও কোচিং জোটেনি। তাই এবার নি¤œ বিত্ত পরিবারের কৃষক কণ্যা সুপ্রিয়া অধিকারী মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়ে সকলকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে।’-রোববার দুপুরে চিতলমারী উপজেলা প্রেসকাবে বসে এমনটাই জানালেন কালিদাস বড়াল স্মৃতি ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার রায়।

তিনি আরও জানান, সুপ্রিয়া ২০১৮ সালের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছে। সে চিতলমারী কালিদাস বড়াল স্মৃতি ডিগ্রী কলেজ থেকে ২০১৭ ও ১৮ সালে উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ কলেজ ছাত্রী নির্বাচিত হয়েছিল এবং ২০১৮ সালে গোল্ডেন জিপিএ ৫ পেয়ে এইচএসসি পাশ করে। এসএসসি’তেও সুপ্রিয়া গোল্ডেন জিপিএ ৫ পেয়েছিল।

এছাড়া ২০১০ সাল থেকে এ পর্যন্ত কালিদাস বড়াল স্মৃতি ডিগ্রী কলেজের পিয়াল, সুমন, অপূর্ব, মুক্তি রথীন, বিপ্রা ও বিথীসহ ৮ জন দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে পড়ছে।

সুপ্রিয়ার বাবা অনিমেষ অধিকারী বাগেরহাট টুয়েন্টি ফোরকে জানান, অভাবের সংসারে সন্তানরা তার আশার আলো। দরিদ্রতার কারণে তিনি ছেলে-মেয়েকে প্রাইভেট ও কোচিং পড়াতে পারেননি। তারপরও তিনি মেয়ের এ সাফল্যের জন্য সকলের কাছে দোয়া ও আশীর্বাদ প্রার্থনা করেছেন।

bagerhat24.com

Share Button

Leave a Reply