‘সহানুভূতি’ ও ‘শিবির তত্ত্ব’

মতামত
Share Button

‘সহানুভূতি’ ও ‘শিবির তত্ত্ব’

কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারি করার দাবিতে সোমবার ঢাকার শাহবাগে শিক্ষার্থীদের অবস্থান ধর্মঘট।

কোটা সংস্কার আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা আজ থেকে শিক্ষাঙ্গনে ক্লাস- পরীক্ষা বর্জন শুরু করেছে। শাহবাগের রাস্তা আবার আটকানো হয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেন আটকে আন্দোলন চলছে। কুমিল্লায় গতকাল আন্দোলনকারীরা আক্রান্ত হয়েছেন ছাত্রলীগ দ্বারা। আন্দোলন ছড়িয়ে পড়তে পারে সারা দেশে।

গতকাল বিকেল পাঁচটার মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি না হলে, এই ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দিয়েছিলেন তারা। কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে এত কিছু হয়ে যাওয়ার পর, আবার কেন আন্দোলন বা ক্লাস বর্জনের মত কর্মসূচি আসছে? দায় কার,আন্দোলনকারীদের, না সরকারের নীতি- নির্ধারকদের?

গত কয়েকদিনের ঘটনা প্রবাহের দিকে দৃষ্টি দেওয়া যাক।

১. আন্দোলনের প্রেক্ষিতে সংসদে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা ‘কোটাই থাকারই দরকার নাই’ এবং অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে ফিরে এসে সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্য ‘…ছাত্ররা কোটা ব্যবস্থা বাতিল চেয়েছে, বাতিল করে দেওয়া হয়েছে…।’

প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ভেতরে সন্দেহ- ক্ষোভ বাড়ছিল। প্রজ্ঞাপন জারি বিষয়ে ‘কোনো নির্দেশনা পাইনি’ জাতীয় বক্তব্য মন্ত্রিপরিষদ সচিবের মুখ থেকে বেশ কয়েকবার শোনা গেছে। এতে আন্দোলনরতদের মনে সন্দেহ বেড়েছে। প্রজ্ঞাপন জারিতে বিলম্ব সরকারের কোনো কৌশল নয় তো? এই প্রশ্ন সামনে এসেছে।

এপ্রিলের শেষ দিকে শিক্ষার্থীরা আবার আন্দোলনের দিকে মনোযোগ দেয়। সংবাদ সম্মেলন করে সে কথা জানায়।

২৮ এপ্রিল আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ণ নেতা জাহাঙ্গীর কবির নানক তার বাসায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। আলোচনা শেষে শিক্ষার্থীরা বলেন, ৭ মে বা তার আগেই প্রজ্ঞাপন জারি হবে বলে তাদের নিশ্চিত করা হয়েছে। জাহাঙ্গীর কবির নানক সুনির্দিষ্ট তারিখ উল্লেখ না করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরলে ‘যত দ্রুত’ সম্ভব প্রজ্ঞাপন জারির চেষ্টা করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী বিদেশ থেকে ফিরে এসেও কোটা বাতিলের কথাই বলেছেন, কোনো সংশয় না রেখে।

২. কিন্তু ৭ মের মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি। ওবায়দুল কাদের বলছেন, ‘সরকারি চাকরিতে কোটা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যই ফাইনাল। সরকারি চাকরিতে কোনও কোটা পদ্ধতি থাকবে না।’

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যই ফাইনাল, তা নিয়ে কোনো বিতর্ক নেই। প্রজ্ঞাপন জারি ৭ মের মধ্যে হলো না,সে বিষয়ে যদি একটি ঘোষণা থাকত তাহলে তো আন্দোলনের প্রসঙ্গ বা যুক্তি থাকতো না। যে কোনো কারণে প্রজ্ঞাপন জারি হতে সময় লাগতে পারে। সরকারের সুযোগ- অধিকার দু’টোই আছে একথা বলার যে, প্রজ্ঞাপন জারি হতে আরও ৭ দিন বা ৩০ দিন সময় লাগবে। আন্দোলনরতদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিলেন ৭ মে বা ‘যত দ্রুত’ সম্ভব সমস্যার সমাধান করবেন। ৭ মের আগেই আরেকটি ঘোষণা এবং সেই দেওয়া দরকার ছিল জাহাঙ্গীর কবির নানকের যে, আরও এতদিন সময় লাগবে।তাহলে তো এই আন্দোলনের প্রসঙ্গই আসতো না।

ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কথার ওপর বিশ্বাস রাখা উচিত। এই ইস্যুতে আন্দোলনের হুমকি সমীচীন নয়। ছাত্রদের আন্দোলনের প্রতি সরকারের সহানুভূতি রয়েছে।’

এই বিশ্বাস রাখার জন্যে ছোট্ট একটি ঘোষণা দিতে সমস্যা হচ্ছে কেন?

৩.কোটা সংস্কার আন্দোলন যে একটি জটিল জায়গায় যাচ্ছে বা নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, এই দায় কার? আন্দোলনকারীদের না সরকারের নীতি- নির্ধারকদের?

ওবায়দুল কাদের বলছেন ‘ছাত্রদের আন্দোলনের প্রতি সরকারের সহানুভূতি রয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা বলছেন, ‘সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই বলছি যারা এই আন্দোলনে নেতৃত্ব যারা দিচ্ছে তাদের অধিকাংশই ছাত্র শিবিরের।’

সড়ক ও সেতু মন্ত্রী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আন্দোলনকারীদের প্রতি সরকারের ‘সহানুভূতি’র কথা বলছেন, আর প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম এত কিছু ঘটে যাওয়ার এতদিন পর আন্দোলনরত নেতাদের ‘শিবির’ বলছেন।

সরকারের দুই গুরুত্বপূর্ণ নীতি- নির্ধারকের অবস্থান দুই মেরুতে।

প্রজ্ঞাপন জারি বিষয়ে সন্দেহ মূলত এমন বিপরীতমুখী বক্তব্যের কারণেই তৈরি হয়েছে। প্রাসঙ্গিকভাবেই আবার আন্দোলনের প্রসঙ্গ এসেছে।

৪. কোটা আন্দোলনকারীদের দাবি প্রধানমন্ত্রী মেনে নিতে পারেন, এমন অবস্থা তৈরি হওয়ার পর, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার আগেই ছাত্রলীগ কোটা সংস্কার আন্দোলনের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিল। তিন দিন আগে বিরোধিতা করে মিছিল করলেও, প্রধানমন্ত্রীর কোটা বাতিল ঘোষণার পর, প্রথম বিজয় মিছিল ছাত্রলীগ করেছে।

‘শিবির’ নেতাদের আন্দোলনের পক্ষে ছাত্রলীগ অবস্থান নিয়েছিল, মিছিল করেছিল? ছাত্রলীগ নেতারা তাদের ফেসবুকে লিখলেন, ‘তারা ছাত্রদের আন্দোলনের যৌক্তিকতা প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরায় তিনি কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেবেন’। এরপর কী একথা বলা যায় যে, আন্দোলনের নেতারা ‘শিবির’?

আওয়ামী লীগ সমর্থিত শিক্ষকরা দলবেঁধে আন্দোলনকারীদের মাঝে গেলেন, আন্দোলনরত নেতাদের কণ্ঠে কণ্ঠ মিলিয়ে কোটা সংস্কার দাবির সঙ্গে একত্ত্বতা ঘোষণা করলেন। ‘শিবির’ নেতাদের আন্দোলন সমর্থন করলেন, আওয়ামী লীগ সমর্থক শিক্ষকরা, শিক্ষক নেতারা?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যও আন্দোলনকে যৌক্তিক বললেন। তিনিও ‘শিবির’ নেতাদের আন্দোলনকে যৌক্তিক বললেন?

এসব প্রশ্নের উত্তর কী? উত্তর কি আছে এইচ টি ইমামের কাছে, আছে ছাত্রলীগ- শিক্ষক নেতৃবৃন্দ বা সরকারের নীতি- নির্ধারকদের কাছে?

৫. ‘আবার কেন আন্দোলন’- উত্তর সরকারের জানা। জানা বিষয় নিয়ে প্রশ্ন না করে, দায় না চাপিয়ে- সরকারের হাঁটা দরকার সমাধানের পথে। আন্দোলন, রাস্তা অবরোধ অবশ্য সমর্থনযোগ্য নয়। সেকারণে পরিস্থিতি যাতে সেদিকে না যায়, তার কার্যকর উদ্যোগ সরকারকেই নিতে হবে। দমনে সমাধান মিলবে না।

লক্ষ লক্ষ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের নেতারা সবাই ‘শিবির’- একথার মধ্য দিয়ে জামায়াত- শিবিরের শক্তি সামর্থ্যকে বহুগুণ বাড়িয়ে দেখানো হয়। মনে হয় পুরো বাংলাদেশের প্রায় সব শিক্ষার্থীরাই শিবির।

বাস্তবে শিবিরের শক্তি এর কাছাকাছিও নয়, সবাই শিবিরও নয়। এসব বিভ্রান্তিকর কথা বলা মানে নিজেদের ক্ষতি নিজেরা করা।

কোটা সংস্কারের মত যৌক্তিক আন্দোলন লেবু চিপার মত কচলিয়ে তেতো করার কোনো অর্থ হয় না।

স্টার অনলাইন

Share Button